Monday , June 25 2018
Home / স্বাস্থ ও চিকিৎসা / রক্তস্বল্পতায় যেই খাবারগুলো খাবেন

রক্তস্বল্পতায় যেই খাবারগুলো খাবেন

শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ অংশ। তবে শরিরে রক্তের ভারসাম্যপুর্ণ উপস্থিতি আরো জরুরি। দেহে রক্তের পরিমাণ ঠিকঠাক না থাকলে রক্তস্বল্পতার মতো ভয়ানক রোগের দেখা দেয়। আবার রক্তে লোহিত রক্ত কণীকার পরিমাণ ও কমে যেতে পারে। যাদের রক্তস্বল্পতার সমস্যা রয়েছে , তাদের ঔষধের চাইতে সঠিক খাদ্যাভ্যাস আয়ত্ত করাটা জুরুরি। এমন সব খাবার খেতে হবে যেগুলো খেলে দেহে রক্ত উতপাদন হয়। নিম্নে এমন কয়েকটি খাবারের নাম তুলে ধরা হলো।

মাংসঃ বিভিন্ন প্রকার মাংসে প্রোটিন ও লৌহের পরিমাণ খুব বেশি থাকে। প্রোটিন ও লৌহ রক্তে হিমোগ্লোবিন তৈরি করে। তাই রক্তস্বল্পতায় মাংস খাওয়া জরুরি।

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফলঃ যে সমস্ত ফলে ভিটামিন সি পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকলে সেগুলো খেতে হবে। যেমনঃ পেয়ারা, আম, লেবু, স্ট্রবেরি, কমলা, আপেল ইত্যাদি। ভিটামিন সি রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বৃদ্ধি করে।

সামুদ্রিক মতসঃ সামুদ্রিক মাছে পচুর পপ্রিমাণে লৌহ ও মিনারেল থাকে, যা রক্তে হিমোগ্লোবিন তৈরি করতে সবচাইতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। তাই রক্তস্বল্পতার রোগীদের জন্য সামুদ্রিক মাছ, বা প্রানি খাওয়া অত্যন্ত জরুরি।

ডিমঃ ডীম আরেকটি জনপ্রিয় পাণীজ খাদ্য, যাতে প্রচুর পরিমাণে লৌহ ও প্রোটিন থাকে। বিশেষ করে ডিমের হলুদ অংশে প্রচুর, মিনারেল ও প্রোটিন থাকে। তাই দুর্বল ব্যক্তিদের চিকিৎসকরা ডিম খেতে বলেন।

কালো চকোলেটঃ চকোলেট সব সময়ই সবার প্রিয়। বিশেষ করে বাচ্চাদের বেশি প্রিয়। তাই চিকিৎসকরা রক্তের চাহিদা পুরণে কালো চকোলেট খেতে বলে, যাতে প্রচুর লৌহ রয়েছে, যা দেহের স্বাভাবিক চাহিদা পূরণ করে।

শুকনো ফলঃ কিস্মিস, আখঅরোট, বাদামের মতো শুকনো ফল্গুলোও প্রচুর মিনারেল ও প্রোটিন বহন করে। সুযোগ পেলেই এগুলো খাওয়া উচিত। এনিমিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের জন্য দ্রুত হিমোগ্লোবিন তৈরিকরতে চিকিৎসকরা শুকনা খাবার খাবার পরামর্শ দেন।

তাজা শাক-সব্জিঃ এছাড়াও নিয়মিত খাবারে তাজা সবুজ শাক সবজি রাখা উচিত। যেমনঃ কচুশাক, লালশাক, পুইশাক ইত্যাদি।

সম্পাদনায়ঃ জান্নাতুল মাওয়া অনন্যা

Check Also

স্ট্রোকের ৭ লক্ষণ

স্ট্রোককে এক কথায় বলা যায় মস্তিস্কে রক্তক্ষরণ। স্ট্রোকের ফলে মস্তিস্কের নালীগুলোতে অক্সিজেন সরব্রাহ বন্ধ হয়ে …