Saturday , June 15 2019
Home / ধর্ম ও জীবন / যে পরিমাণ সম্পদ থাকলে কুরবানি আবশ্যক

যে পরিমাণ সম্পদ থাকলে কুরবানি আবশ্যক

মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব হলো ঈদুল আযহা বা কোরবানির ঈদ। তবে অর্থনৈতিক সামর্থ না থাকলে পশু কোরবানি দিতে হবে এমন বিধান নেই। কী পরিমাণ সম্পদ হলে কুরবানি আবশ্যক হয়?

জিলহজ মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখ কুরবানি আদায় করতে হয়। এ দিনগুলোতে যারা নিত্য প্রয়োজনীয় সাংসারিক খরচ ছাড়া অতিরিক্ত নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক থাকবে তাদের ওপর কুরবানি আদায় করা আবশ্যক।

এ নিসাব পরিমাণ সম্পদ হলো, সাড়ে ৭ তোলা স্বর্ণ বা এর সমমূল্য কিংবা সাড়ে ৫২ তোলা রূপা কিংবা তার সমমূল্যের সম্পদ থাকা। তবে কুরবানি আবশ্যক হতে এ পরিমাণ সম্পদ পূর্ণ ১ বছর থাকা শর্ত নয়।

– পারিবারিক ব্যয় নির্বাহের জন্য যে পরিমাণ জমি বা ফসলের (খাদ্য-শস্য) দরকার; সে পরিমাণ থেকে অতিরিক্ত জমি বা ফসলের মূল্য অথবা যে কোনো একটির মূল্য যদি নিসাব পরিমাণ সম্পদের মূল্যের সমান হয়। তাহলেও ওই ব্যক্তির জন্য কুরবানি করা আবশ্যক।

– গরিব ব্যক্তি যদি কুরবানির নিয়তে কুরবানির পশু ক্রয় করে তবে ওই ব্যক্তির ওপর কুরবানি সম্পন্ন করা আবশ্যক।

– কোনো ব্যক্তি স্বচ্ছল হোক অস্বচ্ছল হোক কুরবানির মান্নত করলে তা আদায় করাও আবশ্যক।

– কোনো ব্যক্তি যত বেশি সম্পদের মালিক হোক না কেন, তার জন্য একটি কুরবানিই আবশ্যক।

Check Also

কাবার দরজায় ৮ টুকরো মরমর পাথরের রহস্য প্রকাশ?

পবিত্র কাবা শরিফের দরজার পাশেই ৮টি মরমর পাথরের টুকলো লাগানো রয়েছে। এর কারণ সম্পর্কে সম্প্রতি …