Sunday , November 19 2017
Breaking News
Home / খেলাধুলা / বাংলাদেশের কাছে হার অস্ট্রেলিয় গণমাধ্যমের এ কেমন প্রচার!

বাংলাদেশের কাছে হার অস্ট্রেলিয় গণমাধ্যমের এ কেমন প্রচার!

Loading...

‘গরিবের কাছে ধনীর হার’ বলছে অস্ট্রেলীয় গণমাধ্যম। ‘ওভারপেইড প্রাইমা ডোনাজ’—ইংরেজিতে এর একটি অর্থ ‘প্রাপ্যের অতিরিক্ত অর্থ পায় যারা’। ঠিক আক্ষরিক না হলেও আরও একটি অর্থ হতে পারে—‘যাদের সন্তুষ্ট করা কঠিন’। সে যা-ই হোক, বাংলাদেশের কাছে ঢাকা টেস্টে হারের পর অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট দলের পরিচয়টা তাদের গণমাধ্যমের কাছে এমনই।

বাংলাদেশের কাছে হারটা অস্ট্রেলীয় কৌলীন্যে একধরনের আঘাতই। স্মিথের দলকে তাই আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু বানিয়েছে দেশটির গণমাধ্যম। মেলবোর্ন হেরাল্ড সানই তাদের ‘ওভারপেইড প্রাইমা ডোনাজ’ নামটি দিয়েছে। হেরাল্ডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ঢাকায় যা ঘটেছে, সেটি ক্রিকেট দুনিয়ার কাছে বিস্ময়কর হলেও প্রাইমা ডোনাজদের কাছে লজ্জার।’ অস্ট্রেলিয়া দলকে উদ্দেশ করে প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়েছে, ‘তোমরা যদি পারিশ্রমিক নিয়ে ধর্মঘটে যাও, তাহলে নিশ্চয়ই মাঠের পারফরম্যান্সকে সেটার সপক্ষে যুক্তি হিসেবে উপস্থাপন করো। কিন্তু বাংলাদেশের কাছে হার সেটি করছে না।’

বাংলাদেশ সফরে আসার আগেই ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে পারিশ্রমিক নিয়ে স্মরণকালের সবচেয়ে আলোচিত বিরোধে জড়িয়ে পড়েছিলেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা। বাংলাদেশ সফর বয়কট করার হুমকি তাঁরা তো দিয়েছিলেনই, হুমকি দিয়েছিলেন অ্যাশেজ না খেলার; এমনকি জাতীয় দলেই কোনো দিন না খেলার। বোর্ডের সঙ্গে নতুন পাঁচ বছরের চুক্তিতে খেলোয়াড়দের দারুণ লাভই হয়েছে। এই সময় তাঁদের ব্যাংক হিসাবে যোগ হবে (সম্মিলিতভাবে) ৫০ কোটি অস্ট্রেলিয়ান ডলার (৩৯ কোটি ৬০ লাখ মার্কিন ডলার)। স্মিথদের এ পারিশ্রমিক বাড়িয়ে নেওয়ার বিষয়টি এখন নতুন করে সমালোচনা মুখে পড়েছে বাংলাদেশের কাছে হারের পর। দেশটির সর্বাধিক বিক্রীত জাতীয় সংবাদপত্র ‘দ্য অস্ট্রেলিয়ান’-এর মন্তব্য, ‘লজ্জার সফরে’ স্মিথরা এমন কিছু খেলোয়াড়ের কাছে ‘অপদস্থ’ হয়েছেন, যাঁরা তাঁদের চেয়ে কম বেতন পান।

‘দ্য অস্ট্রেলিয়ান’-এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘অস্ট্রেলিয়ার প্রথম দল হিসেবে টেস্টে বাংলাদেশের কাছে হারা সেই দুর্ভাগা ১১ ক্রিকেটার গড়ে ১৩ লাখ ৬০ হাজার অস্ট্রেলীয় ডলার বেতন পাবেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছ থেকে। তাঁদের সাপ্তাহিক বেতন প্রায় ২৬ হাজার অস্ট্রেলীয় ডলার। যে দলটা (বাংলাদেশ) টার্নিং উইকেটে তাঁদের অপদস্থ করেছে, তাদের ক্রিকেটাররা গড়ে ২৬ হাজার ১৩৬ অস্ট্রেলীয় ডলার বেতন গোনেন। সপ্তাহে যেটি মাত্র ৫০০ অস্ট্রেলীয় ডলার।’

‘দ্য অস্ট্রেলিয়ান’ আরও লিখেছে, অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা জাতীয় দলের অনুশীলনের নেটের চেয়ে নিজেদের অ্যাসোসিয়েশনে বেশি সময় কাটিয়েছেন। সেই প্রতিবেদনে অবশ্য সাবেক অস্ট্রেলীয় পেসার রডনি হগের অভিমতও প্রকাশ করেছে তারা। তিনি মনে করেন, অস্ট্রেলিয়া একটি ভালো দলের কাছেই হেরেছে। বাংলাদেশ খুবই ভালো দল। উপমহাদেশে অস্ট্রেলিয়ার পারফরম্যান্স খুবই খারাপ।

স্মিথ-ওয়ার্নারদের আয়ের সঙ্গে সাকিব-তামিম-মুশফিকদের আয়ের তুলনাও টানা হয়েছে সেই প্রতিবেদনে, ‘অস্ট্রেলিয়া দলের সর্বোচ্চ আয় করা দুই তারকা স্মিথ ও ওয়ার্নার নতুন চুক্তির অধীনে এ বছর প্রায় ২০ লাখ (অস্ট্রেলিয়ান) ডলার করে পকেটে ভরবেন। বাংলাদেশ দলে সর্বোচ্চ আয় করা খেলোয়াড় মুশফিক, সাকিব ও তামিম। তাঁদের প্রত্যেকের বার্ষিক বেতন প্রায় ২৪ লাখ টাকা, মানে প্রায় ৩৭ হাজার ২৪০ অস্ট্রেলীয় ডলার।’

তবে বাংলাদেশের এ জয়ের প্রশংসা করেছেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক ও ক্রিকেট বিশ্লেষক ইয়ান চ্যাপেল। তাঁর মতে, এ হার প্রমাণ করে, অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং এখনো স্মিথ-ওয়ার্নারের ওপর নির্ভরশীল। চ্যাপেলের যুক্তি, ‘ওঁরা (স্মিথ-ওয়ার্নার) আউট হওয়ার পর সেই চিরাচরিত বিপর্যয় ঘটেছে। বাংলাদেশের জন্য এটি ছিল দারুণ এক জয়।’

Loading...
Loading...

Check Also

তবুও কুমিল্লার কাছে হারলো রংপুর

Loading... বিশ্বের সেরা দুই ব্যাটসম্যানকে নিয়েও পারলো না রংপুৃর রাইডার্স। দুই স্পিনারের ধাক্কটাই আর সামলে …